Categories
লাইফস্টাইল

গর্ভবতী হওয়ার প্রথম সপ্তাহের লক্ষণ সমূহ

গর্ভবতী হওয়ার প্রথম সপ্তাহের লক্ষণ সমূহ – কোনও মাসে পিরিয়ড না-হলে তাঁকে প্রেগনেন্সির লক্ষণ মনে করে থাকেন অধিকাংশ বিবাহিত মহিলাই।

কিন্তু পিরিয়ড মিস হওয়াই গর্ভধারণের একমাত্র লক্ষণ নয়। দেখা গিয়েছে, পিরিয়ড মিস না-হওয়া সত্ত্বেও গর্ভধারণ করেছেন অনেক মহিলা।

পিরিয়ড ছাড়াও নানান শারীরবৃত্তিয় ঘটনা রয়েছে যা গর্ভধারণের দিকে ইশারা করে। তবে সচেতনতার অভাবে অধিকাংশ মহিলাই এ বিষয় ওয়াকিবহাল নন।

পিরিয়ড ছাড়া শরীরে কোন কোন পরিবর্তন দেখে গর্ভধারণের বিষয় নিশ্চিত হতে পারেন জেনে নিন।

একটি গর্ভাবস্থা পরীক্ষা নিঃসন্দেহে আপনি গর্ভবতী কিনা তা মূল্যায়ন করার সবচেয়ে সঠিক উপায়।

তবে, কয়েকটি সাধারণ উপসর্গ ঘটলে, সেগুলিকে পিরিয়ড মিস করার আগে গর্ভধারণের প্রথম লক্ষণ বলে ধরা যায়।

গর্ভবতী হওয়ার প্রথম সপ্তাহের লক্ষণ সমূহ

মুখের স্বাদের ভিন্নতা

প্রথম সপ্তাহে গর্ভবতীর লক্ষণ হিসেবে সর্বপ্রথম দেখা যায় তাদের মুখ স্বাদের পরিবর্তন ঘটেছে। কিছু কিছু খাবার খেতে গেলে আপনার প্রচন্ড বাজে গন্ধ অনুভব হয়।

শরীরে হরমোনের মাত্রার তারতম্যের এর কারনেই এই সমস্যাটি দেখা দেয়।

কালো ছোপ ছোপ দাগ

প্রথম সপ্তাহে গর্ভকালীন মায়ের শরীর এ কালো ছোপ ছোপ দাগ দেখা যেতে পারে এবং বিশেষ করে মুখের ত্বকে এই কালো দাগ গুলো উঠতে দেখা যায়।

আরো পড়ুনঃ   চুল গজানোর উপায়

অতিরিক্ত প্রস্রাব

গর্ভধারণ করার সাথে সাথে শরীর এর অনেক অঙ্গ প্রতঙ্গ পরিবর্তন হওয়া শুরু করে দিয়েছে তেমনি আপনার কিডনী ও ডাবল স্পিডে কাজ করা শুরু করে দেয়।

যার কারণে বারবার আপনার মূত্র ত্যাগ করতে যেতে হয়।

ক্লান্তি ভাব

প্রথম সপ্তাহে অন্তঃসত্ত্বা মায়েদের শরীর এ প্রচুর পরিমানে ক্লান্তি ভাব শুরু হয়ে যায়।

এর কারন হল শিশুর পুষ্টি গুণ নিশ্চিত করার জন্য শরীর প্রচুর পরিমাণে রক্ত উৎপাদন করা শুরু করে দেয় যার কারণে খুব অল্প সময়েই শরীর ক্লান্ত হয়ে যায়।

ভ্যাজাইনাল ডিসচার্জ

কোনও সংক্রমণের কারণে এমন হতে পারে। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে গর্ভবতী মহিলাদেরও এই ডিসচার্জ হয়।

কিছু কিছু মহিলার প্রেগনেন্সির প্রথম তিনমাসে ভ্যাজাইনাল ডিসচার্জ হয়ে থাকে। হরমোনে পরিবর্তনের ফলে এই ডিসচার্জ হয়।

►► চুল গজানোর উপায়
►► আপেল সিডার ভিনেগার

শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি

নানান কারণে শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে। সংক্রমণ বা সর্দি তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণ হতে পারে।

তবে অনেক সময় গর্ভধারণের কারণেও শরীরে তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে।

গর্ভধারণ কালে প্রোজেস্টেরোনের স্তর বৃদ্ধি পাওয়ায় এমন হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ   মুখের দাগ দূর করার উপায়

২০ দিন পর শরীরের তাপমাত্রা ওভুলেশানের কারণে বৃদ্ধি পেলে, এটি জীবনের নতুন অধ্যায়ের সূচনার দিকে ইঙ্গিত দেয়।

  • প্রেগন্যান্সির সময় শরীর অতিরিক্ত পরিমাণ তরল উৎপাদন করে। আর তার জেরে কিডনি দ্বিগুণ পরিমাণে কাজ করে।
  • আর সে কারণেই অতি ঘন ঘন শৌচাগারে যাওয়া প্রয়োজনীয় হয়।
  • গর্ভাবস্থায় মাথার যন্ত্রণা হতে পারে। গর্ভধারণ করার প্রথম সপ্তাহের শুরুতেই মাথাব্যথা শুরু হতে থাকে।
  • হরমোনের মাত্রা শরীরে বেড়ে যাওয়ার কারণেই এ সমস্যা হয়।
  • পিরিয়ডের তারিখ ছাড়াও যদি হঠাৎ কখনো ভ্যাজাইনাল ব্লিডিং হয়, তাহলেও প্রেগনেন্সি পরীক্ষা করিয়ে নিন।
  • ভ্যাজাইনাল ব্লিডিং, স্পটিং ও ক্র্যাম্পস প্রেগনেন্সির দিকে ইশারা করে।
  • গর্ভধারণকালে মুড সুইং ও মাথা ঘোরা খুবই সাধারণ লক্ষণ।
  • গর্ভধারণের সময় হরমোনে নানা পরিবর্তনের কারণে আকস্মিক কান্না, হঠাৎ করে রেগে যাওয়া, আনন্দিত হওয়া, আবার অতিরিক্ত এক্সাইটেড হয়ে পড়েন গর্ভবতী নারী।
  • প্রেগনেন্সির শুরুর দিনে মাথাব্যথা অনুভূত হতে পারে। গর্ভাবস্থার প্রাথমিক পর্যায় রক্ত সঞ্চালন ও হরমোনের স্তর বৃদ্ধির কারণে এমন হয়।
  • এ সময় তীব্র মাথা ব্যথার পাশাপাশি ক্লান্তি অনুভব হতে পারে।
  • বারবার টয়লেটে যাওয়ার প্রবণতাও গর্ভধারণের অন্যতম প্রধান লক্ষণ।
  • ওভ্যুলেশান প্রক্রিয়ার পর গর্ভধারণ সম্পন্ন হলে, দিনে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি প্রস্রাব হয়।
অনুগ্রহ করে আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন।  আমাদের ফেসবুক পেইজ এ লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.